২০ জানুয়ারি ২০১৯, ৭ মাঘ ১৪২৫

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages

বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে সহায়তার আশ্বাস

নিজস্ব প্রতিবেদক, হেলথ নিউজ | ২৪ জুলাই ২০১৮, ২৩:০৭ | আপডেটেড ২৪ জুলাই ২০১৮, ১১:০৭

health-adidptar

দেশের স্বাস্থ্য সেবা উন্নয়নে স্বাস্থ্য বিভাগ এবং বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ।

তাহলে অধিদপ্তর থেকে তাদেরকে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাসও তিনি দেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ ঢাকা মহানগরীর ২১টি বেসরকারি হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

অধ্যাপক আজাদের সভাপতিত্বে এই বৈঠকে অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল) অধ্যাপক ডা. কাজী জাহাঙ্গীর হোসেনসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় জাতীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় বেসরকারি হাসপাতালের অবদান, জনস্বাস্থ্যে দায়দায়িত্ব, মানসম্পন্ন ও সাশ্রয়ী মূল্যে সেবা প্রদান, বিদেশে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণের প্রবণতা রোধ, দেশে মেডিকেল ট্যুরিজম প্রসারসহ নানাবিষয়ে আলোচনা হয়।

অধ্যাপক আজাদ বলেন, “সহস্রাবদ্ধ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) ২০৩০ সালে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বেসরকারি স্বাস্থ্যখাতের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার উপর গুরুত্ব দিতে হবে। সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং ব্লাড ব্যাংক পরিচালনায় আরও বেশি সহায়তা প্রদান করা হবে।”

বেসরকারি হাসপাতালের মালিক-কর্তৃপক্ষকে সেবার মানোন্নয়ন, ব্যবস্থাপনার নানা সমস্যা দূর করার পরামর্শও দেওয়া হয় সভা থেকে।

নোটিশ: স্বাস্থ্য বিষয়ক এসব সংবাদ ও তথ্য দেওয়ার সাধারণ উদ্দেশ্য পাঠকদের জানানো এবং সচেতন করা। এটা চিকিৎসকের পরামর্শের বিকল্প নয়। সুনির্দিষ্ট কোনো সমস্যার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াই শ্রেয়।

স্বাস্থ্য সেবায় যাত্রা শুরু

আঙুর কেন খাবেন?

ছোট এ রসালো ফলটিতে আছে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ ও ভিটামিন। আঙুরে রয়েছে ভিটামিন কে, সি, বি১, বি৬ এবং খনিজ উপাদান ম্যাংগানিজ ও পটাশিয়াম। আঙুর কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা ও হৃদরোগের মতো রোগ প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

সব টিপস...

চকলেটে ব্রণ হয়?

এই পরীক্ষাটি চালাতে গবেষকরা একদল ব্যক্তিকে এক মাস ধরে ক্যান্ডি বার খাওয়ায় যাতে চকলেটের পরিমাণ ছিল সাধারণ একটা চকলেটের চেয়ে ১০ গুণ বেশি। আরেক দলকে খাওয়ানো হয় নকল চকলেট বার। চকলেট খাওয়ানোর আগের ও পরের অবস্থা পরীক্ষা করে কোনো পার্থক্য তারা খুঁজে পাননি। ব্রণের ওপর চকলেট বা এতে থাকা চর্বির কোনো প্রভাব রয়েছে বলেও মনে হয়নি তাদের।

আরও পড়ুন...

            গর্ভপাত এড়াতে যা জানা চাই

300-250
promo3