২০ মার্চ ২০১৯, ৬ চৈত্র ১৪২৫

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages

শরীরের ঘড়ি ধরে খাবার খাচ্ছেন তো?

ডেস্ক রিপোর্ট, হেলথ নিউজ | ১১ জুন ২০১৮, ১৬:০৬ | আপডেটেড ১২ জুন ২০১৮, ০১:০৬

eating-wrong-time

সকালের খাবার খান রাজার মতো, দুপুরের খাবার খান রাজপুত্রের মতো, আর রাতের খাবার হবে ভিখারির মতো। খাবার নিয়ে খুব প্রচলিত একটি কথা এটি। আবার বিশেষজ্ঞরা বলেন, খাবার খান দেহঘড়ি বা সারকেডিয়ান রিদম বুঝে।

কী এই ঘড়ি?

অনেকে মনে করেন, সারকেডিয়ান রিদম বা বডি ক্লক হল এমন একটি বিষয়, যা আমাদের ঘুমের সময়টা নির্ধারণ করে দেয় । কিন্তু বিষয়টি তা নয়। এ ঘড়িটি বলতে গেলে শরীরের প্রতি কোষেই রয়েছে। এটা রক্তচাপ, শরীরের তাপমাত্রা, হরমোন লেভেল নিয়ন্ত্রণসহ অন্যান্য কাজের মাধ্যমে সারাদিনের বিভিন্ন কাজ (যেমন সকালে ঘুম থেকে ওঠা) সময়মতো করতে সহায়তা করে।

লন্ডনের কিংস কলেজের নিউট্রিশনাল সায়েন্সেস বিভাগের ভিজিটিং লেকচারার ড. গেরডা পট বলেন, “আমাদের শরীরের অভ্যন্তরে ২৪ ঘণ্টা ধরে একটি ঘড়ি কাজ করে, যা কোন সময়ে কোন কাজটা করা উচিত, তা ঠিক করে দেয়।”

তিনি বলেন, “এই ঘড়িটাই আমাদের জানিয়ে দেয় যে সন্ধ্যায় ভারী খাবার খাওয়া ঠিক নয়, কারণ এসময় শরীরটা রাতের ঘুমের জন্য প্রস্তুত হতে থাকে।”

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, দৈনিক যতটুকু ক্যালরি আমাদের গ্রহণ করা প্রয়োজন তার বেশিরভাগ যদি দিনের শুরুতে গ্রহণ করা যায় এবং সারাদিনের অন্যান্য বেলার খাবার সময়টাকে এগিয়ে আনা যায় তাহলে তা আমদের স্বাস্থ্যের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, ওজন কমাতে আগ্রহী নারীরা তাদের দুপুরের খাবার তাড়াতাড়ি গ্রহণ করলে ওজন দ্রুত কমে। আর যারা দেরিতে সকালের নাস্তা খায় তুলনামূলকভাবে তাদের বডি মাস ইনডেক্স বা বিএমআই থাকে বেশি।

ইউনিভার্সিটি অব সুররের ক্রোনোবায়োলজি অ্যান্ড ইন্টেগ্রেটিভ সাইকোলজির অধ্যাপক জোনাথন জনস্টন বলেন, বিভিন্ন গবেষণায় জানা গেছে যে সন্ধ্যার পর থেকে শরীররে বিপাক হার কমতে থাকে। কিন্তু কেন এটা হয় তা জানা যায়নি।

তার মতে, যা খাবার খাচ্ছ তাতে তেমন পরিবর্তন না করে শুধু খাবার খাওয়ার সময়টা পরিবর্তন কর- ছোট্ট এ উপদেশটা যদি মেনে নেই তাহলেই বুঝব আমাদের চারপাশের সুস্থ লোকজনের জীবনে এটা কতটা জরুরি।

শিফট ওয়ার্কার, নার্সদের মতো পেশাজীবী যারা রাতে কাজ করায় শরীরের অভ্যন্তরীণ ঘড়ির সঙ্গে তাল মেলানো যায়না তাদেরকে কিভাবে সহায়তা করা যায় তা নিয়েও কাজ করছেন গবেষকরা।

তাহলে কি প্রতিবেলার খাবার সময় এগিয়ে আনা উচিত?

গবেষকরা বলেন, এ বিষয়ে এখনও অনেক কিছু জানার রয়েছে। যেমন খোবার খাওয়ার ও খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকার সম্ভাব্য সময় কোনটা, এটা কিভাবে আমাদের বডি ক্লককে প্রভাবিত করে, বিশেষ কোনো সময়ে বিশেষ কোনো খাবার খাওয়ায় ক্ষতির কোনো সম্ভাবনা আছে কিনা ইত্যাদি।

তবে ড. জনস্টন ও ড. পট উভয়ই সারাদিনে প্রয়োজনীয় ক্যালরির বেশিরভাগ অংশ দিনের প্রথমভাগে খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

সূত্র: বিবিসি

বিষয়:

নোটিশ: স্বাস্থ্য বিষয়ক এসব সংবাদ ও তথ্য দেওয়ার সাধারণ উদ্দেশ্য পাঠকদের জানানো এবং সচেতন করা। এটা চিকিৎসকের পরামর্শের বিকল্প নয়। সুনির্দিষ্ট কোনো সমস্যার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াই শ্রেয়।

স্বাস্থ্য সেবায় যাত্রা শুরু

আঙুর কেন খাবেন?

ছোট এ রসালো ফলটিতে আছে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ ও ভিটামিন। আঙুরে রয়েছে ভিটামিন কে, সি, বি১, বি৬ এবং খনিজ উপাদান ম্যাংগানিজ ও পটাশিয়াম। আঙুর কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা ও হৃদরোগের মতো রোগ প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

সব টিপস...

চকলেটে ব্রণ হয়?

এই পরীক্ষাটি চালাতে গবেষকরা একদল ব্যক্তিকে এক মাস ধরে ক্যান্ডি বার খাওয়ায় যাতে চকলেটের পরিমাণ ছিল সাধারণ একটা চকলেটের চেয়ে ১০ গুণ বেশি। আরেক দলকে খাওয়ানো হয় নকল চকলেট বার। চকলেট খাওয়ানোর আগের ও পরের অবস্থা পরীক্ষা করে কোনো পার্থক্য তারা খুঁজে পাননি। ব্রণের ওপর চকলেট বা এতে থাকা চর্বির কোনো প্রভাব রয়েছে বলেও মনে হয়নি তাদের।

আরও পড়ুন...

  মেনোপজের পর সতর্ক থাকতে হবে যে বিষয়ে

300-250
promo3