২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages

মস্তিষ্কের জন্য ক্ষতিকারক ৯টি খাবার

ডেস্ক রিপোর্ট, হেলথ নিউজ | ২৭ জুন ২০১৮, ১৩:০৬ | আপডেটেড ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১২:০৮

IMG_3736

কী খেলে বুদ্ধি বাড়ে, তা অনেকই শুনেছি আমরা; কিন্তু কী খেলে কমতে পারে, তা কি জানি?

জেনে নিন এমন কিছু খাবারের নাম, যা কমিয়ে দিতে পারে আপনার মস্তিস্কের ক্ষমতা।

চিনি

অতিরিক্ত চিনি খাওয়া যে স্বাস্থ্যকর নয়, তা মোটামুটি সবারই জানা। এটা যে মস্তিষ্কের ক্ষতির কারণ হতে পারে, তা জানা গেছে সাম্প্রতিক এক গবেষণায়। গবেষকরা ধারণা করছেন, ফলের শর্করা (ফ্রুকটোস) সমৃদ্ধ খাবার মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে। অন্যদিকে বিশেষ কিছু ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড ফ্রুকটোসের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে মস্তিষ্ককে রক্ষা করে। এ গবেষণা অবশ্য এখনও প্রাথমিক অবস্থায় রয়েছে। তবে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের সাধারণ পরামর্শ হল, প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় চিনির পরিমাণ কমিয়ে ওয়ালনাট, স্যামন, ফ্ল্যাক্স সিড ও সয়াবিনের মতো ওমেগা ৩ সমৃদ্ধ খাবার যুক্ত করুন।

ডায়েট সোডা

চিনির ক্ষতিকর প্রভাব এড়াতে কৃত্রিম চিনি খাওয়া খাওয়া যারা শুরু করেছেন, তাদের হতাশ করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, এতে ভালো ফলাফল পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। ২০১৭ সালে চার হাজার ৩০০ ব্যক্তির খাদ্যাভাসের ওপর চালানো এক গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয় স্ট্রোক সাময়িকীতে। এতে দেখা যায়, ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে যারা কৃত্রিম চিনি দিয়ে তৈরি পানীয় গ্রহণ করেছেন, অন্যদের তুলনায় তাদের স্মৃতিভ্রমের ঘটনা বেশি ঘটেছে।

বেকড খাবার

কেবল চিনিই যে ক্ষতিকর তা নয়; কেক, চকলেটে থাকা ট্রান্স ফ্যাটও সমান ক্ষতিকর। ২০১৫ সালে প্রাপ্তবয়স্কদের এক ধরনের মেমরি টাস্ক নেওয়া হয়। অংশগ্রহণকারীদের কয়েকটি শব্দ দেখানো হয় এবং পরে তা বলতে বলা হয়। দেখা যায়, যাদের প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় ট্রান্স ফ্যাট বেশি ছিল, তাদের স্মৃতিশক্তি ছিল দুর্বল।

রেড মিট ও বাটার

হার্ভার্ডের  এক গবেষণায় দেখা যায়, খাদ্যতালিকায় ‘খারাপ’ স্যাচুরেটেড ফ্যাট (রেড মিট বা লাল মাংস, বাটারে থাকে) থাকলে মস্তিষ্কের ওপর তার নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। গড়ে প্রায় চার বছর ধরে ৬ হাজার নারীরওপর এ গবেষণা চালানো হয়। এতে দেখা যায়, যেসব নারী মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট (অলিভ ওয়েল, অ্যাভোকাডোর মতো খাবার থেকে পাওয়া যায়) বেশি গ্রহণ করেছিলেন, স্মৃতিশক্তি তাদেরই ভালো।

জাঙ্ক ফুড

২০১১ সালে যুক্তরাজ্যে প্রায় ৪ হাজার শিশুর ওপর গবেষণা চালিয়ে দেখা যায়, তিন বছর বয়স পর্যন্ত যেসব শিশু চিপস, পিজ্জাসহ অন্যান্য জাঙ্ক ফুড বেশি খেয়েছে, সুষম খাদ্য গ্রহণকারী শিশুদের তুলনায় তাদের সাধারণ জ্ঞান (আইকিউ) কিছুটা কম।

চুইংগাম

চুইংগাম চিবালে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়ে না কমে? এ নিয়ে মিশ্র মতামত রয়েছে। যুক্তরাজ্যের এক্সপেরিমেন্টাল সাইকোলজি জার্নালে প্রকাশিত সাম্প্রতিক এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মানসিক কোনো পরীক্ষার সময় চুইংগাম চিবালে অংশগ্রহণকারীদের স্মৃতিশক্তি কিছু কমতে পারে। অথচ এর আগের গবেষণায় চুইংগাম চিবানোর সাথে মানসিক কার্যক্রমের ইতিবাচক সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া যায়।

কম শর্করার ডায়েট

ওজন কমানো বিষয়টি এলে সর্বপ্রথমেই আমরা শর্করা বাদ দিয়ে দেই। আসলে শর্করা খুব খারাপ নয়। মস্তিষ্কের কার্যকারিতাসহ শরীরের আরো কিছু প্রয়োজন মেটায় এটি। ২২-৫৫ বছর বয়সী ১৯ জন নারীর ওপর এক গবেষণা চালিয়ে টাফট ইউনিভার্সিটি দেখেছে, খাবার থেকে শর্করা বাদ দেওয়ায় অংশগ্রহণকারীদের জ্ঞানগত দক্ষতা (বিশেষ করে স্মৃতিশক্তি সম্পর্কিত পরীক্ষা) কিছুটা কমে গেছে।

লবণ

২০১২ সালের কানাডায় পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা যায়, যারা বেশি মাত্রায় লবণ খায়, অথচ শরীরচর্চা করে না, অন্যদের তুলনায় দ্রুত তাদের জ্ঞানের স্তর কমে গেছে।

মদ

এক গবেষণায় বলা হয়েছে, প্রাপ্তবয়স্ক যেসব ব্যক্তি দৈনিক সাত থেকে ১০ বার মদ পান করেন, তাদের মস্তিষ্ক পুরনো স্মৃতি কম মনে রাখতে পারে।

সূত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট

বিষয়:

নোটিশ: স্বাস্থ্য বিষয়ক এসব সংবাদ ও তথ্য দেওয়ার সাধারণ উদ্দেশ্য পাঠকদের জানানো এবং সচেতন করা। এটা চিকিৎসকের পরামর্শের বিকল্প নয়। সুনির্দিষ্ট কোনো সমস্যার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াই শ্রেয়।

স্বাস্থ্য সেবায় যাত্রা শুরু

আঙুর কেন খাবেন?

ছোট এ রসালো ফলটিতে আছে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ ও ভিটামিন। আঙুরে রয়েছে ভিটামিন কে, সি, বি১, বি৬ এবং খনিজ উপাদান ম্যাংগানিজ ও পটাশিয়াম। আঙুর কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা ও হৃদরোগের মতো রোগ প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

সব টিপস...

চকলেটে ব্রণ হয়?

এই পরীক্ষাটি চালাতে গবেষকরা একদল ব্যক্তিকে এক মাস ধরে ক্যান্ডি বার খাওয়ায় যাতে চকলেটের পরিমাণ ছিল সাধারণ একটা চকলেটের চেয়ে ১০ গুণ বেশি। আরেক দলকে খাওয়ানো হয় নকল চকলেট বার। চকলেট খাওয়ানোর আগের ও পরের অবস্থা পরীক্ষা করে কোনো পার্থক্য তারা খুঁজে পাননি। ব্রণের ওপর চকলেট বা এতে থাকা চর্বির কোনো প্রভাব রয়েছে বলেও মনে হয়নি তাদের।

আরও পড়ুন...

              শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য, কী করবেন?

300-250
promo3