১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৫ ফাল্গুন ১৪২৫

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages

সুস্থ শিশুর জন্য বাবার খাবারও জরুরি

ডেস্ক রিপোর্ট, হেলথ নিউজ | ৬ জুন ২০১৮, ০৩:০৬ | আপডেটেড ৬ জুন ২০১৮, ০৩:০৬

Argument-Child

সুস্থ শিশুর জন্ম দেওয়ার জন্য এতদিন শুধু মায়ের খাবারের উপরই মনোযোগ ছিল সবার; এক গবেষণা তাতে ঘটাচ্ছে বাঁক বদল। এই গবেষকরা বলছেন, হবু বাবার খাবারের বিষয়টিও ফেলনা না।
যুক্তরাষ্ট্রের সিনসিনাটি ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা বলছেন, সুস্থ সন্তানের জন্য পুরুষের স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ।
তারা বলছেন, সন্তানের স্বাস্থ্য কী রকম হবে, সেটা নির্ভর করছে যৌনাচারের আগে বাবা কী ধরনের খাবার খেয়েছেন, তার ওপরও।
আর এটা জানা গেল মৌমাছির উপর গবেষণা চালিয়ে।
পুরুষ মৌমাছিদের পর্যবেক্ষণ করে বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, তাদের খাবারে যদি কার্বোহাইড্রেট খুব বেশি এবং প্রোটিন কম থাকে, তাহলে তাদের জন্ম দেওয়া সন্তানের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা খুব কম হয়।
মানুষের জিনের সঙ্গে মৌমাছির জিনের মিল থাকায় মানুষের ক্ষেত্রেও একই সিদ্ধান্ত টানছেন তারা।
গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, “এটা স্পষ্ট যে সুস্থ শিশু জন্মদানের জন্যে বাবাকে কম কার্বোহাইড্রেট ও বেশি প্রোটিন আছে, এ ধরনের খাবার খেতে হবে।”
বিশ্ববিদ্যালয়ে জীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মাইকেল পোলক এবং জশুয়া বেনয়েতের নেতৃত্বে গবেষণাটি পরিচালিত হয়।
অধ্যাপক পোলক বলেন, “আমরা সত্যিই বিস্মিত হয়েছি। বিভিন্ন প্রজাতির মধ্যে আমরা দেখেছি যে এ বিষয়ে মায়েরাই প্রচুর যত্নশীল হন। কিন্তু নবজাতকের স্বাস্থ্যের সাথে যে বাবারও ভূমিকা থাকতে পারে, সেটা দেখে আমরা অবাক হয়েছি।”

নোটিশ: স্বাস্থ্য বিষয়ক এসব সংবাদ ও তথ্য দেওয়ার সাধারণ উদ্দেশ্য পাঠকদের জানানো এবং সচেতন করা। এটা চিকিৎসকের পরামর্শের বিকল্প নয়। সুনির্দিষ্ট কোনো সমস্যার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াই শ্রেয়।

স্বাস্থ্য সেবায় যাত্রা শুরু

আঙুর কেন খাবেন?

ছোট এ রসালো ফলটিতে আছে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ ও ভিটামিন। আঙুরে রয়েছে ভিটামিন কে, সি, বি১, বি৬ এবং খনিজ উপাদান ম্যাংগানিজ ও পটাশিয়াম। আঙুর কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা ও হৃদরোগের মতো রোগ প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

সব টিপস...

চকলেটে ব্রণ হয়?

এই পরীক্ষাটি চালাতে গবেষকরা একদল ব্যক্তিকে এক মাস ধরে ক্যান্ডি বার খাওয়ায় যাতে চকলেটের পরিমাণ ছিল সাধারণ একটা চকলেটের চেয়ে ১০ গুণ বেশি। আরেক দলকে খাওয়ানো হয় নকল চকলেট বার। চকলেট খাওয়ানোর আগের ও পরের অবস্থা পরীক্ষা করে কোনো পার্থক্য তারা খুঁজে পাননি। ব্রণের ওপর চকলেট বা এতে থাকা চর্বির কোনো প্রভাব রয়েছে বলেও মনে হয়নি তাদের।

আরও পড়ুন...

মেয়ের প্রথম ঋতুচক্র এবং অভিভাবকের করণীয়

300-250
promo3