দুই ক্যান্সার গবেষকের নোবেল জয়

ডেস্ক রিপোর্ট, হেলথ নিউজ | ১ অক্টোবর ২০১৮, ১৬:১০ | আপডেটেড ৩ অক্টোবর ২০১৮, ১১:১০

Nobel-Prize-Medicine---

দেহের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে ব্যবহার করে প্রাণঘাতী ক্যান্সার মোকাবেলার চিকিৎসা পদ্ধতি আবিষ্কারের স্বীকৃতি পেলেন দুই গবেষক।

চিকিৎসায় এবারের নোবেলজয়ী এই দুই গবেষক হলেন যুক্তরাষ্ট্রের অধ্যাপক জেমস পি অ্যালিসন এবং জাপানের অধ্যাপক তাসুকু হনজো।

সোমবার নোবেল কমিটি তাদের নাম ঘোষণার মধ্য দিয়ে এবারের নোবেল বিজয়ীদের নামের ঝাঁপি খুলল। এরপর ধারাবাহিকভাবে অন্য ক্ষেত্রে জয়ীদের নাম ঘোষণা হবে।

আগামী ১০ ডিসেম্বর সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে। দুজন বলে চিকিৎসার নোবেল পুরস্কারের অর্থ ৯০ লাখ সুইডিশ ক্রোনার বা ৮ লাখ ৭০ হাজার ইউরো ভাগাভাগি করে নেবেন অ্যালিসন ও তাসুকু হনজো।

দ্য ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সার (আইএআরসি) বলছে, ২০১৮ সালে ক্যান্সার রোগীর সংখ্যায় যোগ হতে পারেন ১ কোটি ৮১ লাখ মানুষ এবং এতে মারা যেতে পারেন ৯৬ লাখ মানুষ।

বিশ্বজুড়ে ক্যান্সারের এই ভয়াবহ রূপের মধ্যে দুই বিজ্ঞানীর গবেষণা নতুন আশা দেখাচ্ছে, যা মনোযোগ কেড়েছে নোবেল কমিটিরও।

নোবেল কমিটি বলছে, অধ্যাপক অ্যালিসন ও অধ্যাপক হনজো দেখিয়েছেন, কীভাবে বিকল্প পদ্ধতিতে দেহের নিজস্ব প্রতিরোধ ক্ষমতাকে উজ্জীবিত করে ক্যানসার কোষকে আটকে ফেলা যায়। ক্যান্সারের চিকিৎসায় রীতিমতো বিপ্লব ঘটিয়েছেন তারা।

এই গবেষকদের এই চিকিৎসা পদ্ধতি ‘ইমিউন চেকপয়েন্ট থেরাপি’ নামে পরিচিতি পেয়েছে। তাদের আবিষ্কার চরম পর্যায়ে থাকা ত্বক ক্যান্সারের চিকিৎসায় চমৎকার ফল দেখিয়েছে।

পুরস্কারের জন্য মনোনীত হওয়ার প্রতিক্রিয়ায় জাপানের কিয়োটো ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক হনজো বলেন, “আমি আমার গবেষণা আরও এগিয়ে নিতে চাই, যাতে এই থেরাপির মাধ্যমে আরও ক্যান্সার রোগীর জীবন বাঁচানো যায়।”

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস ইউনিভার্সিটির এমডি অ্যন্ডারসন ক্যানসার সেন্টারের অধ্যাপক অ্যালিসন বলেন, “যারা ইমিউন চেকপয়েন্ট থেরাপি নিয়ে সেরে উঠেছেন, তাদের জন্য এটা আনন্দের খবর।”

মানবদেহের ইমিউন সিস্টেম বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করে সুস্থ রাখে। এই লড়াইয়ের সময় ইমিউন সিস্টেম যেন কখনও কোষের ক্ষতি না করে, সেই ব্যবস্থাও প্রাকৃতিক। কিন্তু কিছু ক্যান্সার এই সুযোগটা নেয় এবং ইমিউন সিস্টেমকে ফাঁকি দিয়ে বাড়তে থাকে।

বিবিসি বলছে, যে প্রোটিনের কারণে ইমিউন সিস্টেম নিজের কোষের ক্ষতি করা থেকে বিরত থাকে, সেই প্রোটিনটি গবেষণার মাধ্যমে শনাক্ত করেন অ্যালিসন ও হনজো। তারা ওই প্রোটিনের উৎপাদন বন্ধ করার পদ্ধতি খুঁজে বের করেন, যাতে ইমিউন সিস্টেম টিউমারকে আক্রমণ করে নির্মূল করতে ১৯৯০ এর দশকে তাদের এই গবেষণার পথ ধরে ক্যান্সার চিকিৎসার নতুন ওষুধ তৈরি হয়।

বর্তমানে ত্বকের ক্যান্সার মেলানোমার চিকিৎসায় এই থেরাপি ব্যবহার হলেও ইদানিং ফুসফুসের ক্যান্সারের চিকিৎসাতেও তার প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

বিষয়:

নোটিশ: স্বাস্থ্য বিষয়ক এসব সংবাদ ও তথ্য দেওয়ার সাধারণ উদ্দেশ্য পাঠকদের জানানো এবং সচেতন করা। এটা চিকিৎসকের পরামর্শের বিকল্প নয়। সুনির্দিষ্ট কোনো সমস্যার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াই শ্রেয়।

এমন ভারতবর্ষ দেখেনি কেউ আগে

এমন ভারতবর্ষ দেখেনি কেউ আগে

দেশে করোনায় মৃত্যুর মিছিলে ১১ হাজারেরও বেশি মানুষ

সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ

কমছে মৃত্যু, বাড়ছে স্বস্তি

খালি হাতেই পার হতে হবে দ্বিতীয় ঢেউ !

সর্বত্রই এখনো অসহায় আত্মসমর্পণ

মৃত্যু পৌণে ১২ লাখ ছাড়িয়ে গেছে

পৌণে ১২ লাখ মানুষ মারা গেলেন

করোনায় মৃত ৫ হাজার ছাড়ালো

করোনাভাইরাসে পৃথিবীর ৮ লাখ মানুষ নেই

সাড়ে ৭ লাখের বেশি মানুষ মারা গেলেন করোনায়

বিশ্বে একদিনেই ২ লাখ আক্রান্ত

আক্রান্ত ও মৃত্যু বাড়ছেই

নির্ধারিত মুল্যে আইসিডিডিআরবিতে করোনা টেষ্ট

২৪ ঘন্টায় প্রায় ৪ হাজার আক্রান্ত

৩৮ থেকে বেড়ে মৃত্যু ৪৩

ব্রাজিলে একদিনেই শনাক্ত ৫৪ হাজারের বেশি

সপ্তাহ ধরেই মৃত্যু কমপক্ষে ৩৫

মৃত্যু নেমেছে ৪৫ থেকে ৩৭ জনে

স্বাস্থ্য সেবায় যাত্রা শুরু

আঙুর কেন খাবেন?

ছোট এ রসালো ফলটিতে আছে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ ও ভিটামিন। আঙুরে রয়েছে ভিটামিন কে, সি, বি১, বি৬ এবং খনিজ উপাদান ম্যাংগানিজ ও পটাশিয়াম। আঙুর কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা ও হৃদরোগের মতো রোগ প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

সব টিপস...

চকলেটে ব্রণ হয়?

এই পরীক্ষাটি চালাতে গবেষকরা একদল ব্যক্তিকে এক মাস ধরে ক্যান্ডি বার খাওয়ায় যাতে চকলেটের পরিমাণ ছিল সাধারণ একটা চকলেটের চেয়ে ১০ গুণ বেশি। আরেক দলকে খাওয়ানো হয় নকল চকলেট বার। চকলেট খাওয়ানোর আগের ও পরের অবস্থা পরীক্ষা করে কোনো পার্থক্য তারা খুঁজে পাননি। ব্রণের ওপর চকলেট বা এতে থাকা চর্বির কোনো প্রভাব রয়েছে বলেও মনে হয়নি তাদের।

আরও পড়ুন...

      ভিটামিন ডির ঘাটতি পূরণে কী করণীয়?

300-250
promo3